ঢাকা, ||

ঈশ্বরগঞ্জে ভিজিএফের ২৬৭ বস্তা চাল জব্ধ; চেয়ারম্যান নীরব!


ময়মনসিংহ

প্রকাশিত: ১:১৮ অপরাহ্ন, আগস্ট ১৫, ২০১৮

আবারও ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ভিজিএফের ২৬৭ বস্তা চাল জব্ধ করেছে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন। গতকাল মঙ্গলবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে ও বিকেলে পৃথক অভিযান চালিয়ে এ চাল জব্ধ করা হয়।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, উপজেলার রাজিবপুর ও তারুন্দিয়া ইউনিয়নের দু’টি বাজারে ভিজিএফের চাল মজুদ রয়েছে এমন খবর পেয়ে সোমবার (১৩ আগস্ট) দিনগত রাতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মইনউদ্দিন খন্দকার রাজিবপুরের শাহগঞ্জ বাজারে অভিযানে যান। এ সময় তিনি বাজারের রুহুল আমিন ও আবদুল মোতালেবের দু’টি দোকান সিলগালা করে দেন।

পরে মঙ্গলবার দুপুরে অভিযানে গিয়ে রুহুল আমিনের দোকান থেকে ৫০ কেজি বস্তার ৩৬ বস্তা এবং আবদুল মোতালেব ও হবি মিয়ার যৌথ দোকান থেকে ২০১ বস্তা চাল জব্দ করে দোকানগুলো সিলগালা করে দেন এসিল্যান্ড মইন উদ্দিন খন্দকার।

এর আগে ইউএনও এলিশ শরমিন সোমবার দুপুরে স্থানীয় বড়হিত ইউনিয়নের দু’টি দোকানে অভিযান চালিয়ে ২৩ বস্তা চাল জব্দ করেন।

এদিকে, উপজেলার তারুন্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের পেছনে আমিনুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ী চাল মজুদ করেছেন খবর পেয়ে অভিযানে যায় পুলিশ। পরে বিকেলে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এলিশ শরমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে ৩০ বস্তা চাল জব্দ করেন। এ সময় চালগুলো রেখে ঘরটি সিলগালা করে দেন তিনি।

ভিজিএফের চাল কেলেঙ্কারি নিয়ে এবারও উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন কোনো সদুত্তর দিতে পারেন নি। এলাকাবাসী সকলেই জানে যে আমিন ও মোতালেব চেয়ারম্যানের ঘনিষ্ঠজন। কিন্তু দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় চাল নিয়ে চোরাকারবারি বন্ধ হচ্ছে না।

চাল জব্দ করার বিষয়টি নিশ্চিত করে ইউএনও এলিশ শরমিন বলেন, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া এবারচ্ছে।

Top